বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৩rd August ২০১৫

ইনমাস,এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাস, সিলেট


 

পরমাণু চিকিৎসা এবং আলট্রাসাউন্ড সিলেট
ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ চত্বর
ডাক বাক্স নং-৬৭, সিলেট -৩১০০, ফোন : ০৮২১-৭১৬১৬০
ই-মেইল  : nmcsyl@blsnet.net


পরমাণু শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন বাংলাদেশে ১৩টি পরমাণু চিকিৎসা কেন্দ্র এবং একটি পরমাণু চিকিৎসা ইনষ্টিটিউটের মাধ্যমে তেজস্ক্রিয়  ঔষধ ব্যবহার করে আধুনিক চিকিৎসা  সেবা দিয়ে আসছে। সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ চত্বরে অবস্থিত পরমাণু চিকিৎসা এবং আলট্রাসাউন্ড সিলেট এর মধ্যে একটি।

সিলেট কেন্দ্র এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে সংক্ষিপ্তভাবে আলোকপাত করা হল।

সিলেট কেন্দ্রের ইতিহাস:

পরমাণু শক্তি ব্যবহার করে আধুনিক চিকিৎসা সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে ১৯৮০ সনে সিলেট ওসমানী  মেডিক্যাল কলেজ চত্বরে পরমাণু চিকিৎসা কেন্দ্র সিলেট প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ১৯৮২ সনে আনুষ্ঠানিকভাবে এর কার্যক্রম শুরু করে।

পরমাণু চিকিৎসা:

পরমাণু চিকিৎসা হল একটি বিশেষ চিকিৎসা ব্যবস্থা, যাতে তেজষ্ক্রিয় ঔষধ ব্যবহার করে মানব দেহের বিভিন্ন ধরণের রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। এ বিশেষয়িত চিকিৎসা ব্যবস্থায় ঐসব রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা করা হয় যেগুলি প্রচলিত পদ্ধতিতে করা অসম্ভব।

চিকিৎসা সুবিধা:

পরমাণু চিকিৎসা কেন্দ্রে দুই ধরনের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে।

১. রোগ নির্ণয় (Diagnosis)

২. রোগের চিকিৎসা (Therapy)

 

১. রোগ নির্ণয় (Diagnosis)

এখানে ইনভিভো এবং ইনভিট্রো এই দুইভাবে রোগ নির্ণয় করা হয়।    

ক) ইনভিভো (In-vivo) পদ্ধতি

এই পদ্ধতিতে স্থির (static) ও গতিশীল (dynamic) নিউক্লিয়ার ইমেজিং এর মাধ্যমে রোগ নির্ণয়ের জন্য নিম্নলিখিত পরীক্ষাসমূহ করা হয়ে থাকে।

  •  স্থির (Static) -স্ক্যান গামা ক্যামেরার দ্বারা হাড়, মস্তিষ্ক, যকৃত, বৃক্বসহ বিভিন্ন অংগের স্ক্যানের মাধ্যমে ঐ সমস্ত অংগের রোগ নির্ণয় করা হয়, বিশেষত ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের হাড় (বোন মেটাষ্টাসিস) পরীক্ষায় বিশেষ সহায়তা প্রদান করে। একই পদ্ধতিতে থাইরয়েড গ্রন্থির (গলগন্ড রোগ) আকার, আকৃতি এবং নডুল এর প্রকৃতি ও জানা যায়।
  •  গতিশীল (dynamic)- স্ক্যান গামা ক্যামেরার দ্বারা বৃক্বের কার্যকারীতা পরীক্ষার জন্য রেনোগ্রাম ও পিত্তথলির নিঃস্বরণ পরীক্ষার জন্য এইচ বি এস হাইডা পরীক্ষা করা হয়। পিত্ত থলির অপারেশনের পর এই পরীক্ষা বিশেষ সহায়তা প্রদান করে।

খ) ইন- ভিট্রো (in vitro)

এখানে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি সম্বলিত একটি ইন-ভিট্রো গবেষণাগার রয়েছে। এই গবেষণাগারে আর, আই.এ (RIA-Radio Immuno Assay) পদ্ধতির মাধ্যমে থাইরয়েড হরমোন সহ বিভন্ন ধরনের হরমোন, যথা T3,T4, TSH, FT3, FT4, TMAB, FSH, LH, Prolactin. Progesterone. Testosterone, Estradiol, AFP,CEA, Cortisol ইত্যদি পরিমাপ করা হয়।

গ) আল্ট্রাসনোগ্রাম (Ultra sonogram)

4D Color Doppler এবং 2D আল্ট্রাসাউন্ড যন্ত্রের দ্বারা কেন্দ্রে প্রতিদিনই যকৃৎ, পিত্তথলি, পিত্তথলির পাথর, কিডনি, থাইরয়েড, পেটের, বুকের পানি জমা, শিশুর মস্তিষ্কের ভেন্ট্রিকল পরিমাপ সহ সব ধরনের প্রসুতি ও স্ত্রীরোগের আলট্রাসনোগ্রাম পরীক্ষা করা হয়ে থাকে। এ ছাড়াও বন্ধ্যা মহিলাদের ডিম্বের ফলিকুলোমেট্রি পরীক্ষা করা হয়। গবেষণামূলক সমীক্ষায দেখা গেছে, বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে জন্মগতভাবে শিশু-বৃদ্ধিহীনতা (growth retardation) ২৫%|

ঘ) হাড়ের ক্ষয় রোগ (Osteoporosis)

ঘাড়ের ক্ষয় রোগ নির্ণয়ে BMD পরীক্ষা করা হয়।

 

২) রোগের চিকিৎসা (Therapy)

তেজস্ক্রিয় ঔষধ ব্যবহার করে নিম্নলিখিত চিকিৎসা সুবিধা প্রদান করা হয়ে থাকে।

  •  থাইরোটক্সিকোসিস (Thyrotoxicosis)

রেডিও আয়োডিন দ্বারা থাইরয়েড গ্রন্থির অতিসক্রিয় অবস্থা, থাইরোটক্সিকোসিস কে স্বাভাবিক অবস্থায় আনয়ন করা হয়। গবেষণামূলক সমীক্ষায় দেখা গেছে, বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে ৭.৩০% জনগণ থাইরোটক্সিকোসিস রোগে আক্রান্ত।

সিটি স্ক্যান (CT Scan)

আগামীতে এখানে সিটি স্ক্যান শুরু হতে যাচ্ছে।

চিকিৎসা পরবর্তী যোগাযোগ

থাইরোক্সিকোসিস রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা পরবর্তী অবস্থা নির্ণয় প্রয়োজন। এ জন্য সিলেট কেন্দ্রে নিয়মিতভাবে রোগীদের আজীবন ফলোআপ করা হয়। দুই জন মহিলা চিকিৎসা পরবর্তীকালে গর্ভবতী হলে তাদের শিশু জন্মের সময় ও শিশু বৃদ্ধিকাল পর্যন্ত নিয়মিত ফলো আপ করা হয়।

  • টেরিজিয়াম (Pterygium)

   চোখের টেরিজিয়াম অপারেশনের পর ষ্ট্রনসিয়াম- ৯০ এর সাহায্যে বিটা রেডিয়েশন থেরাপি প্রদান করা হয়।

সেবা নিন সুস্থ থাকুন:

যে কোন রোগের প্রাথমিক অবস্থাতেই রোগ নির্ণয় এবং যথাশীঘ্র চিকিৎসা শুরু করলে রোগ জটিলতর হওয়ার পূর্বেই রোগ এবং রোগের বিস্তার প্রতিরোধ করা সম্ভব। সুপরিসর ভবন, প্রশিক্ষিত জনবল, পরিচ্ছন্ন পরিবেশে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি সমৃদ্ধ পরমাণু চিকিৎসা এবং আলট্রাসাউন্ড কেন্দ্র সিলেটের সেবা নিন এবং সুস্থ থাকুন। এ ছাড়াও এই কেন্দ্র হতে এমনিওটিক মেমব্রেট গ্রাফট সরবরাহ করা হয়। যা আগুনে পোড়া দেহের চিকিৎসায় ব্যবহার হয়।


Share with :
Facebook Facebook