বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৭ মার্চ ২০১৬

ইনমাস, রংপুর মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাস, রংপুর

ভূমিকা :

বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের বৃহত্তর রংপুর জেলার আয়োডিন ঘাটতিজনিত বিভিন্ন সমস্যা এবং মানবদেহে জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীদের পরমাণু চিকিৎসা প্রযুক্তি এবং আল্ট্রাসাউন্ড পদ্ধতিতে রোগ নিরূপণ এবং কিছু রোগের চিকিৎসা প্রদান করে আসছে। ১৯৮৯ ইং সালে প্রতিষ্ঠিত এই কেন্দ্রটি এতদঅঞ্চলের লোকজনদের স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নে বিশেষ অবদান রেখে চলেছে।

 

লক্ষ্য/উদ্দেশ্য :

কম্পিউটার সমৃদ্ধ অত্যাধুনিক বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি ব্যবহারের মাধ্যমে পরমাণু চিকিৎসা পদ্ধতি এবং আল্ট্রাসনোগ্রাম যন্ত্রের সাহায্যে বৃহত্তর রংপুর জেলার অবহেলিত জনগোষ্ঠীর সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণের একমাত্র লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে অত্র কেন্দ্রের পরমাণু চিকিৎসা বিজ্ঞানী ও গবেষকবৃন্দের নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

কার্যক্রম/কর্মকান্ড (গবেষণা/উন্নয়ন/সেবা) :

রোগ নিরূপণ, চিকিৎসা, শিক্ষা, প্রকাশনা, গবেষণা ও উন্নয়ন।

রোগ নিরূপণ : (ক) গলগ্রন্থি পরীক্ষা, (খ) অস্থি স্ক্যান, (গ) ব্রেইন স্ক্যান, (ঘ) লিভার স্ক্যান, (ঙ) অস্টিওপোরোসিস, (চ) কিডনী পরীক্ষা, (ছ) আল্ট্রাসনোগ্রাম, (জ) থাইরয়েড হরমোন রেডিওইম্যুনোএ্যাসে, এফটি , এফটি , প্রোল্যাকটিন।

চিকিৎসাসেবা : (ক) তেজস্ক্রিয় আয়োডিন-১৩১-এর মাধ্যমে গলগ্রন্থির বিষক্রিয়ার চিকিৎসা, (খ) তেজস্ক্রিয় আয়োডিন-১৩১-এর মাধ্যমে গলগ্রন্থির ক্যানসার চিকিৎসা। (গ) চোখের টেরিজিয়াম, কর্ণিয়াল আলসার অপারেশনের পর বিটা রেডিয়েশন থেরাপী।

অর্জিত সাফল্য :

০১-০১-২০১২ হতে ৩১-১২-২০১২ সময়কাল পর্যন্ত অত্র কেন্দ্রে ১২,৫২২ জন রোগীর রোগ নিরূপণ ও চিকিৎসা সেবা প্রদানের ফলে বৃহত্তর রংপুর জেলার জনগোষ্ঠীর আয়োডিন ঘাটতিজনিত বিভিন্ন সমস্যা এবং অন্যান্য জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীদের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে ও বহুলাংশে সুস্বাস্থ্যের মান উন্নীত হয়েছে এবং ৪২,৩৮,৫৫০/- টাকার রাজস্ব অর্জিত হয়েছে।


Share with :